Microsoft Cloud Solution Services

  • 2017

    24

    Dec

    Microsoft Cloud Solution Services

    Posted by:  in  Web Application  at 
    Microsoft Cloud Solution Services

    মাইক্রোসফটের অফিস ৩৬৫ একটি সম্পূর্ণ ক্লাউড সার্ভিস প্রোডাক্ট। অ্যাপ্লিকেশনটি ব্যবহার করে কোনো প্রতিষ্ঠান আরও বেশি ডায়নামিক হতে পারবে। এটি একত্রে কাজ করার আবহ সৃষ্টি করে। অফিস ৩৬৫ এ যতগুলো ফিচার আছে, তা ব্যবহারের ক্ষেত্রে মাইক্রোসফট অফিস যারা আগে ব্যবহার করেছেন, তাদের ক্ষেত্রে ব্যবহারে কোনো সমস্যাই হবে না।
     

    অফিস ৩৬৫ এর গুরুত্বপূর্ণ সব ফিচার

    ফাইল শেয়ার করার ক্ষেত্রে অফিস ৩৬৫ এক যুগান্তকারী সুবিধা নিয়ে এসেছে।

    অফিস ৩৬৫ ব্যবহারকারী ব্যক্তিগত কাজের জন্যই ১ টেরাবাইট স্টোরেজ সুবিধা পাবেন। এ সুবিধা তিনি ব্যবহার করতে পারবেন যেকোনো জায়গা থেকেই এবং প্রয়োজনে ফাইল শেয়ার করতে পারবেন। অফিস ৩৬৫ এর স্কাই ড্রাইভ প্রোর কারণেই ব্যবহারকারী এ সুবিধা পাবেন। খুব সহজেই সব ধরনের ফাইল সব জায়গাতেই শেয়ার করা যাবে।
     

    মাইক্রোসফটের নতুন অফিস ৩৬৫-এ রয়েছে প্রিমিয়াম অ্যান্টি ম্যালওয়ার প্রটেকশন এবং অ্যান্টি স্প্যাম ফিল্টারিং সুবিধা। এতে করে ব্যবহারকারী অবাঞ্ছিত ম্যালওয়ার থেকে রক্ষা পাবেন এবং স্বয়ংক্রিয়ভাবে তার ব্যবহার্য্য সব কাজে ফিল্টারিং সুবিধাও থাকবে।

    ব্যবহারকারী  অফিস ৩৬৫ ব্যবহারের ক্ষেত্রে প্রয়োজনে বিভিন্ন সমস্যার তাৎক্ষণিক সমাধান নিশ্চিত করতে সপ্তাহের ৭ দিন ২৪ ঘণ্টাই ফোনে  তাৎক্ষণিক সেবা পাবেন। এ ক্ষেত্রে সেবা নিশ্চিত করবেন আন্তর্জাতিক মানের আইটি প্রফেশনালরা।
     

    এতে দলগতভাবে কাজ করার জন্য ইউজার নির্ধারণ করে দেওয়া যাবে। কোনো প্রতিষ্ঠান বা সংস্থায় দলগতভাবে কাজ করার ক্ষেত্রেও নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে প্রয়োজনে সিকিউরিটি সেটিংসের কাজ সহজেই করা যাবে।

    ওয়েব ব্রাউজার ব্যবহার করেই ওয়ার্ড, এক্সেল, পাওয়ার পয়েন্ট এবং ওয়ান নোট ফাইল তৈরি করার পাশাপাশি এবং এতে সব ধরনের কাজ করারও সুবিধা থাকবে।

    অফিসে কিংবা যে যেখানেই থাকুক দলগতভাবে প্রয়োজনে ই-মেইল শেয়ার এবং সংরক্ষণ করার সুবিধাও রয়েছে। নির্দিষ্ট ফোল্ডারের নাম দিয়েই সব ই-মেইল সংরক্ষণ করাও যাবে।

    অফিস ৩৬৫ এর ক্ষেত্রে ওয়ার্ড, এক্সেল এবং পাওয়ার পয়েন্ট ডকুমেন্ট নিয়ে আইফোন এবং অ্যান্ড্রয়েড ফোনে কাজ করা যাবে।
     

    এ ছাড়াও উইন্ডোজ ফোনেও এ ধরনের ডকুমেন্ট নিয়ে কাজ করার জন্য ওয়ান নোট, এলওয়াইএনসি এবং শেয়ার পয়েন্ট ইত্যাদি অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করতে পারবেন অফিস ৩৬৫ এর ব্যবহারকারী।

    ক্লাউডে সংযুক্ত থাকায় ব্যবহারকারী সব সময়ই অফিস ৩৬৫ এর বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে  জানার পাশাপাশি সাম্প্রতিক ও অতীতের বিভিন্ন বিষয়ের ওপরও তথ্য পাবেন।
     

    এতে আরও রয়েছে ভার্চুয়াল চ্যাট সুবিধা। যেখানে অফিস ৩৬৫  অ্যাডমিন সেন্টারের মাধ্যমে অন্যান্য ব্যবহারকারীরা সাধারণ অনেক প্রশ্নের উত্তর পেতে সক্ষম হবেন।

    এ অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করার সময় ফিজিক্যাল কোনো সার্ভারের প্রয়োজন হয় না। ফলে ব্যবহারকারী যেকোনো জায়গায়, যেকোনো সময় এবং যেকোনো পছন্দের ডিজিটাল ডিভাইস ব্যবহার করেই কাজ সেরে নিতে পারবেন।
     

    অফিস ৩৬৫ এ এলওয়াইএনসি, এক্সচেঞ্জ এবং শেয়ারপয়েন্ট ব্যবহার করে অনলাইন মিটিং, ভিডিও কনফারেন্সিং, ডিজিটাল নোট নিতে পারবেন এর সব ব্যবহারকারী।

    প্রতিনিয়তই অফিস ৩৬৫ এর যত নতুন নতুন ফিচার আসবে বা আপডেট হবে, সে সম্পর্কে ব্যবহারকারী ব্যাকগ্রাউন্ডে দেখতে পাবেন এবং সেগুলো স্বয়ংক্রিয়ভাবে আপডেট হতে থাকবে।

    ভয়েস চ্যাটিং ও ভিডিও চ্যাটিংয়ের জন্য ব্যবহারকারী উদ্বোধনী সুবিধায় বিনা মূল্যে ৪০টি দেশে ৬০ ঘণ্টা  স্কাইপ ব্যবহার করতে পারবেন।
    অফিস ৩৬৫ যারা ব্যবহার করবেন তাদের জন্য পেমেন্টের ব্যাপারে চমৎকার একটি ব্যবস্থাও রেখেছে মাইক্রোসফট। মাইক্রোসফটের এ পণ্যটি ক্রয় করার ক্ষেত্রে আপনি মাসিক কিস্তির মাধ্যমেও মূল্য পরিশোধ করার সুযোগ পাবেন।

     

    নিরাপত্তা: অফিস ৩৬৫ ব্যবহারকারী গুরুত্বপূর্ণ কোনো ফাইল ফিজিক্যাল সার্ভারে না রেখে ক্লাউড সার্ভিসের সুবিধা নিয়ে নির্দিষ্ট পরিমাণ স্টোরে রাখা হয়। যেকোনো কাজ করার সঙ্গে সঙ্গে প্রয়োজনে দ্রুত তা সম্পর্কে অফিসের বা টিমের যে কাউকে অবহিত করা যায় এবং প্রয়োজনে যেকোনো ফাইল শেয়ার করা যায়। এতে করে ফাইলের অধিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করা সম্ভব হয়।
     

    অফিস ৩৬৫-এর অ্যাডমিন এটির ব্যবহারকারীর সংখ্যা নির্ধারণ করার পাশাপাশি ব্যবহারকারীকে নির্দিষ্ট করে দিতে পারবে আলাদা সিকিউরিটি সেটিংস সহ। অ্যাপ্লিকেশনের কোনো সমস্যার তাৎক্ষণিক সমাধানের জন্য মাইক্রোসফট কর্তৃপক্ষ ফোনে ২৪ ঘন্টা সার্ভিস দেবে।

    আপনার কোনো কাজ যেকোনো জায়গায় বসে যেকোনো সময় কে দেখছে, কে পরিবর্তন করছে তা-ও আপনি নিশ্চিতভাবেই বলতে পারবেন। এ ক্ষেত্রে একটি কাজ কমিউনিটির মাধ্যমে সহজে করার ফলে কাজের ভুল হওয়ার সম্ভাবনাও প্রায় থাকবে না।
     

    সাশ্রয়ী: মাইক্রোসফট তাদের এ পণ্যটি বেশ উৎপাদনমূলক করলেও এখানে সাধারণ গ্রাহকের কথা বিবেচনা করে মূল্যের বিষয়টিতেও গুরুত্ব দিয়েছে। সব সময়ের পণ্যগুলোর তুলনায় এ পণ্যের মূল্য পরিশোধেও একটি বাড়তি সুবিধা রেখেছে তারা।

    যারা ব্যবসায়ী তাদের পক্ষে একসঙ্গে বিনিয়োগ করে একটি পণ্য ক্রয় করা ব্যবসার ওপর বাড়তি চাপ ফেলতে পারে । আবার দেখা যায় যারা বাসাবাড়ির জন্য এ পণ্যটি ক্রয় করবেন, তাদের ক্ষেত্রেও একসঙ্গে অর্থ বিনিয়োগ করা হয়তো সম্ভব না-ও হতে পারে। সবদিক বিবেচনায় রেখেই কনজিউমার, স্মল বিজনেস, মিডসাইজ বিজনেস, এন্টারপ্রাইজ, গভর্নমেন্ট, এডুকেশন সবধরনের অফিস ৩৬৫ এর মূল্য মাসিক কিস্তিতে পরিশোধ করার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে—যা এককথায় মূল্য পরিশোধের চমৎকার সমাধান।
     

    উৎপাদন: অফিস ৩৬৫ এর মধ্যে ওয়ার্ড, এক্সেল, পাওয়ারপয়েন্ট ডকুমেন্টের কাজগুলো যেকোনো সময়ই আপনি পিসি ছাড়াও যাত্রা পথে স্মার্টফোনে ও ট্যাবে করতে পারবেন এবং দেখতে পারবেন। ফলে আপনার কোনো কাজ নির্দিষ্ট কোনো জায়গার জন্য আটকে থাকবে না এবং কাজের অগ্রগতি তুলনামূলকভাবেই বৃদ্ধি পাবে।

    ঠিকই একইভাবে ক্লাউড সার্ভিসের কারণেই আপনি আপনার অফিসের নির্ধারিত লোকজন কিংবা দলের লোকজনের মাধ্যমেও কাজ এগিয়ে নিতে পারবেন। কাজ করার সময় যে কেউ যেকোনো জায়গায় বসেই  কাজ করতে পারবে। কাজের ব্যাপারে দলের একজন একজনের সঙ্গে ভার্চুয়াল মিটিং, ভয়েস চ্যাটিং ইত্যাদি দ্রুত সেরে নিতে পারায়, কোনো ক্ষেত্রেই  মধ্যকার দূরত্ব কোনোভাবেই কাজের গতিকে ধীর করতে পারবে না।

    এ ছাড়াও ব্লগিং, ই-মেইল ইত্যাদির ব্যবস্থা তো রয়েছে। ফলে কাজের ব্যাপারে যেকোনো সময় দিয়ে রাখা গুরুত্বপূর্ণ মেসেজ পাওয়া যাবে।
     

    কাজের গতি বাড়াবে অফিস ৩৬৫:

    অফিস ৩৬৫ মাইক্রোসফটের ইতিহাসে একটি অন্যতম সেরা উদ্ভাবন। ক্লাউড সার্ভিসিংয়ের ক্ষেত্রে যত ধরনের মজাদার অভিজ্ঞতা অর্জন করা সম্ভব, তার পুরোটাই নিশ্চিত করতে পারছে এ ক্লাউডভিত্তিক প্রোগ্রামটি। এ সফটওয়্যারটির ইনস্টলেশন এবং অ্যাকটিভেশনের কাজ অনলাইনভিত্তিক। সারা বছরজুড়ে অফিস ৩৬৫ এর আধুনিক ফিচারগুলোর যত প্রকার আপডেট, তা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই পেতে থাকবেন। আর এ জন্য ব্যবহারকারীকে কোনোভাবেই চিন্তিত থাকতে হবে না।

    ওয়ার্ড, এক্সেল, পাওয়ারপয়েন্টের যেকোনো ফাইল নিয়ে ইন্টারনেটের সাহায্যে সহজেই দলের সদস্যরা আলাদাভাবে যার যার জায়গায় বসে ফাইলের পরিবর্তনের কাজ বা গুরুত্বপূর্ণ ডেটা সংরক্ষণের কাজ যেকোনো সময়ই করতে পারবেন এবং যে কেউ তা আবার অনলাইনেই নির্দিষ্ট জায়গায় সংরক্ষণ করে রাখতে পারবেন।

     

    মজার ব্যাপার হলো: চাইলে ইন্টারনেট ছাড়াও  অফিস ৩৬৫ ব্যবহার করা যাবে। ইন্টারনেটের সঙ্গে যখনই সংযুক্ত হবে তখনই ক্লাউড সার্ভিসিং নিশ্চিত হয়ে যাবে সঙ্গে সঙ্গে।

    সারা বছরজুড়ে মাইক্রোসফটের পক্ষ থেকেই অফিস ৩৬৫ ব্যবহারকারীদের জন্য থাকবে গুরুত্বপূর্ণ সকল ডেটা সুরক্ষিত রাখার নিশ্চয়তা এবং ভাইরাস থেকে মুক্ত থাকার নিশ্চিত গ্যারান্টি।

    কারণ এখানে ব্যবহারকারীরা ফিজিক্যাল সার্ভারের পরিবর্তে ফাইল সংরক্ষণের জন্য ক্লাউডে মাইক্রোসফটের পক্ষ থেকে পাওয়া ভার্চুয়াল সার্ভার ব্যবহার করতে পারবেন।

    সাধারণত ওয়ার্ড, এক্সেল ও পাওয়ারপয়েন্টের কাজ আই প্যাডে করা না গেলেও অফিস ৩৬৫ ব্যবহারকারীরা সহজেই আইপ্যাডে এসব ফাইল নিয়ে কাজ করতে পারবেন।

    অফিস ৩৬৫ এক্টিভ করার পর সাইন আপের মাধ্যমে এর সাহায্যে দলগতভাবে কাজ করার বিষয়টি আরও সৃদৃঢ় করবে এর সঙ্গে পাওয়া ব্লগ, ই-মেইল, অডিও ভিডিও চ্যাটিং, কনফারেন্স ইত্যাদি।

     

    মাইক্রোফট অফিসের পূর্ববর্তী ভার্সনগুলোর তুলনা করলে মূল্যের দিক দিয়েও অফিস ৩৬৫ বেশ সাশ্রয়ীই হবে ক্রেতা বা ভোক্তাদের জন্য। পিসি ছাড়াও ল্যাপটপ, স্মার্টফোন, ট্যাব,আই প্যাড ইত্যাদি বিভিন্ন যন্ত্রাংশে নিশ্চিন্তে অফিস ৩৬৫ ব্যবহার করা যাবে। অনলাইনে ফাইল সংরক্ষণ করার সুবিধা থাকায় ইন্টারনেটের সাহায্যে নিজের পিসিতে না বসেও আপনি অন্য সময় ও সুযোগ বুঝে যেকোনো জায়গাতেই কাজ করার সুযোগ পাবেন।
     

    উল্লেখযোগ্য কিছু সুবিধা

    ১। অনলাইনে ফাইল সংরক্ষণ করে রাখার জন্য স্টোরেজ পাওয়া যাবে। যার জন্য আলাদা কোনো মূল্য প্রদান করতে হবে না।

    ২। অনলাইনে যে ফাইলগুলো সংরক্ষিত থাকবে, সেগুলো সুরক্ষিত রাখার জন্য ভাইরাস, স্প্রেইম ও অন্যান্য থ্রেটের বিরুদ্ধে কাজ করার জন্য অ্যান্টিভাইরাসের সুবিধা পাওয়া যাবে। এ সুবিধা বিনা মূল্যে পাওয়া যাবে।

    ৩। কোনো প্রকার টুলস কিংবা ফিচারের আপগ্রেডেশন স্বয়ংক্রিয়ভাবেই হবে। এ ক্ষেত্রে অতিরিক্ত কোনো খরচ বহন করতে হবে না

    গুগল অ্যাপস ও অফিস ৩৬৫

    ওয়ার্ড প্রসেসিংয়ের জন্য গুগলে যেখানে ডকস ব্যবহার করা হয় অফিস ৩৬৫ এর জন্য সেখানে রয়েছে ওয়ার্ড। স্প্রিডশিটের কাজের জন্য গুগলে রয়েছে শিটস এবং অফিস ৩৬৫ এ রয়েছে এক্সেল। প্রেজেন্টেশন তৈরির জন্য গুগল স্লাইড সফটওয়্যার নিয়ে কাজ করে এবং অফিস ৩৬৫ এর রয়েছে পাওয়ার পয়েন্ট। ই-মেইলের জন্য জিমেইল এবং অফিস ৩৬৫ এর আউটলুক। ওয়েব পেজের জন্য গুগলে সাইটস এবং মাইক্রোসফটের রয়েছে শেয়ার পয়েন্ট। স্টোরেজ স্টোরেজের জন্য গুগলের গুগল ড্রাইভ এবং মাইক্রোসফটের স্কাই ড্রাইভ। তাত্ক্ষণিক মেসেজের জন্য গুগলের টক এবং মাইক্রোসফটের এলওয়াইএনসি। ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের জন্য হ্যাঙ্কআউট এবং মাইক্রোসফটের এলওয়াইএনসি। সোশ্যাল নেটওয়ার্কের জন্য গুগল প্লাস এবং মাইক্রোসফটের জন্য এসও.সিআই। নোট টকিংয়ের জন্য গুগলের কিপ এবং মাইক্রোসফটের ওয়াননোট।
     

    মাইক্রোসফটের অফিসের জনপ্রিয়তা প্রশ্নাতীত। ডেস্কটপ কম্পিউটারের পাশাপাশি স্মার্টফোন এবং ট্যাবলেট ডিভাইসের জন্য বিশেষভাবে তৈরি অফিস ৩৬৫ আমাদের কাজের গতিকে বাড়িয়ে দেবে ।এই সফটওয়্যারটি এখন আমাদের দেশে পাওয়া যাচ্ছে।

    আরও জানতে ভিজিট করুন : Extreme Solutions
    যোগাযোগ করুণ : +031 712 114, +8801613 987 363


Ping Back: RSS